উত্তরায় সামুদ্রিক খাবারের বিশাল সমাহার নিয়ে এলো ‘সি ফুড হাউজ’ (ভিডিওসহ)


» মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান | উত্তরা নিউজ, স্টাফ রিপোর্টার | সর্বশেষ আপডেট: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯ - ১১:১১:৪৮ অপরাহ্ন

উত্তরায় এই প্রথম ফুড লাভারদের চাহিদা পূরণে গড়ে উঠেছে সম্পূর্ণ আলাদা খাবার বিক্রয় ও পরিবেশন প্রতিষ্ঠান ‘সি ফুড হাউজ’।

চিত্র: রবীন্দ্র স্মরণীর পাশে সি ফুড হাউজ ফ্রন্ট ভিউ।

যেটি উত্তরা আজমপুরের রাজউক কমার্শিয়াল থেকে সোজা পশ্চিমে ৭নং সেক্টরের রবীন্দ্র স্মরনীতে অবস্থিত। ভোজন রসিকরা এখানে এসে স্বাদ নিতে পারবেন নানা রকম সামুদ্রিক খাবারের। বিশেষ করে সলমন ফিস, লবস্টার, টুনা, কাটল ফিশ, দেশি স্কুইড, কোরাল, ম্যাকারেল, রূপচাঁদা, ও কাঁকড়া ইত্যাদির তৈরি বিশেষ বিশেষ খাবার তৈরি হয় ‘সি ফুড হাউজ’ নামের এই রেঁস্তেরাটিতে। এছাড়াও এখানে পাওয়া যাবে সি-ফুড স্যুপ, বিভিন্ন ধরনের স্টেক বা গ্রিল, ক্লাউড ব্রিস্টোর, ফিশারম্যান বাকেট, এশিয়ান স্টাইল চিলি ক্র্যাব, সি-ফুড কারির মতো ইত্যাদি সব লোভনীয় খাবার।

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো বিভিন্ন রেস্টুরেন্টগুলো নানা রকম খাবার আইটেমের পাশাপাশি সি ফুডের ব্যবস্থা করে থাকে। কিন্তু এখানে (সী ফুড হাউজ) শুধুমাত্র সী ফুডগুলোই ভোজন রসিকদের জন্য প্রস্তুত করা হয় স্পেশালভাবে।

চিত্র: রেস্টুরেন্টটির ভেতরে মনোরম আলোকসজ্জা ও দৃষ্টিনন্দন বসার ব্যবস্থা।

উত্তরায় ‘সি ফুড হাউজ’ নামের এই রেস্টুরেন্টটির পরিবেশ যে কাউকেই মুগ্ধ করবে। দৃষ্টিনন্দন আলোকসজ্জা, পরিপাটি বসার ব্যবস্থা পরিবার-পরিজন ও প্রিয়জনকে নিয়ে সময় কাটানোর এক মনোরম জায়গা এটি। সেই সাথে মজাদার আইটেমের সব সি ফুডের স্বাদ আপনাকে দিবে এক দারুন অনুভূতি।

এছাড়া যারা পার্টি করতে চান, তাদের জন্য পর্যাপ্ত পরিসরে পসরা সাজিয়েছে সী ফুড হাউজ। রবীন্দ্র স্মরণীতে অবস্থিত এই বাড়ীটির দ্বিতীয় এবং তৃতীয় তলা জুড়ে ‘সি ফুড হাউজ’ এর কার্যক্রম। দ্বিতীয় তলায় রেষ্টুরেন্ট এবং তৃতীয় তলায় পার্টি সেন্টার। যেখানে একসাথে পাঁচশ’ জনের আয়োজন কোন ব্যাপারই নয়। তাই যারা সী ফুডের স্বাদ নিতে কক্সবাজার কিংবা সেন্টমার্টিনে ছুটে যান তাদের জন্য রাজধানী ঢাকার উত্তরায় অবস্থিত এই সি ফুড হাউজেই হতে পারে চাহিদার সবটুকু জোগান।

চিত্র: প্রতিবেদকে সাক্ষাৎকার দিচ্ছেন সি ফুড হাউজ এর কর্ণধার মি. জাবেদ রেজা।

উত্তরার ব্যতিক্রমী এই রেস্টুরেন্টটিতে গিয়ে কথা হয় প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মি. জাবেদ রেজা’র সাথে। উত্তরায় এ ধরনের খাবার রেঁস্তেরা প্রতিষ্ঠার কারণ জানতে তিনি আমাদেরকে বলেন, “উত্তরাতে অনেক খাবার প্রতিষ্ঠান আছে যারা এভারেজ কিছু ফুড নিয়ে কাজ করছে। যেমন বলা যেতে পারে থাই, চাইনিজ, ইন্ডিয়ান, ট্রেডিশনাল ফুডসহ নানা ধরনের আইটেম। আমরা আসলে ফুড লাভারদের জন্য উত্তরাতে একটা নতুন টেস্ট দেয়ার জন্য সি ফুডের ব্যবস্থা করেছি।” তিনি বলেন, “মানুষ কিন্তু এখন রেডমিট থেকে আস্তে আস্তে সরে আসছে, সেই জায়গা থেকে আমরা চিন্তা করেছি সী ফুডগুলো হতে পারে মুখরোচক ও স্বাস্থ্যসম্মত। মূলত সেই জায়গা থেকে আমরা উত্তরাতে এ ধরনের ভিন্ন উদ্যোগটি গ্রহণ করেছি।

সী ফুড হাউজে তৈরিকৃত খাবারের মান সম্পর্কে জানতে চাইলে ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমাদেরকে বলেন, আলহামদুলিল্লাহ! ফুড লাভাররা আমাদের রেস্টুরেন্টের আইটেমগুলো চেখে দেখলেই বুঝতে পারবেন আসলে আমাদের ফুডগুলো কতটুকু স্বাদ এবং স্বাস্থ্যসম্মত। অনেকেই সি ফুডের স্বাদ নিতে থাইল্যান্ড কিংবা কক্সবাজার যান। তাদেরকে বলব আমাদের রেস্টুরেন্টে এসে খেয়ে দেখুন, ঠিক একই রকম স্বাদ পাবেন। কেননা, আমাদের এখানে সরাসরি থাইল্যান্ড থেকে ইমপোর্টকৃত উপাদানসমূহ খাবারে ব্যবহার করা হয়। সে জায়গা থেকে বলতে পারি, শুধু উত্তরা নয় বরং সারা ঢাকার মধ্যে অন্যতম সী ফুডের স্বাদ পাবেন আমাদের সি ফুড হাউজ-এ।

ফুড লাভাররা রেস্টুরেন্টটিতে একসাথে পাবেন একাধিক সী ফিস প্লাটার। একই ডিসে একসাথে দুইজন, পাঁচজন, আটজন এমনকি দশজন পর্যন্ত খেতে পারবেন। এছাড়াও যারা ক্র্যাব খেতে পছন্দ করেন, এখানে আসলে তারা ব্লু ক্র্যাবের স্বাদ নিতে পারবেন স্বাচ্ছন্দেই। যা কেবলমাত্র স্বনামধন্য রেস্টুরেন্টগুলোতেই পাওয়া যায়। এখানে আসলে স্যালমনের স্টেক খেতে একেবারেই ভুলে যাবেন না। আর যারা সী বাজ, তিন কেজি ওজনের লবস্টার খেতে চান তারা অবশ্যই সি ফুড হাউজের কর্তৃপক্ষকে বলবেন। আশা করি অর্ডারের সাথে সাথে পেয়ে যাবেন। এছাড়াও নির্ভরযোগ্য থাই আইটেমের ফুড খেতে যারা পছন্দ করেন বিশেষ করে যারা মমো’র প্রতি দুর্বল, তারা ইচ্ছে করলেই খেতে পারেন এখানকার মমোগুলো। এখানে প্রস্তুতকৃত মমো’র টেস্ট সম্পর্কে লোভ জাগানো বর্ণনাই দিয়েছেন মি. জাবেদ রেজা।

চিত্র: সি ফুড হাউজ-এ কর্মরত ওয়েটারদের দক্ষতা উন্নয়নে বিশেষ অভিজ্ঞ ট্রেইনার দ্বারা পরামর্শ।

এখানে যারা রান্না এবং পরিবেশনের কাজে নিয়োজিত তারা কতটা দক্ষতার সাথে কাজগুলো করতে পারে? এ বিষয়ে জানতে চাইলে মি. জাবেদ রেজা বলেন, আমাদের এখানে যারা কাজ করছে (শেফ, ওয়েটার) তারা সবাই ইতিপূর্বে স্বনামধন্য রেস্টুরেন্টগুলোতে কাজ করে এসেছে। অনেকের দেশের বাইরেও কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। বাংলাদেশের প্রথম সারির রেস্টুরেন্টগুলোতে কাজ করেছে এমন কর্মীদের দ্বারা আমরা এখানে গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছি। কর্মীরা যথেষ্ঠ দক্ষ ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন।

তো প্রথম অবস্থায় উত্তরায় গ্রাহকদের কেমন সাড়া পাচ্ছেন? প্রশ্নের জবাবে মি. জাবেদ জানান, আলহামদুলিল্লাহ, মোটামুটি প্রতিদিনই ভালো ভিজিটিং হচ্ছে। পঞ্চাশ থেকে ষাটজন করে নিয়মিত গেস্ট আসছেন এবং তাঁদের কাছ থেকে আমরা ভালো ফিডব্যাকও পাচ্ছি।” তিনি বলেন, “টেস্ট হচ্ছে আমাদের আইডেন্টিটি। এই আইডেন্টিটিই আমরা ধরে রাখার চেষ্টা করছি।”

চিত্র: পার্টি সেন্টারের উপর্যুক্ত পরিবেশ।

আগেই বলেছি যে, উত্তরা ৭নং সেক্টরের রবীন্দ্র স্মরণীর পাশে অবস্থিত সামুদ্রিক খাবার প্রাপ্তির একমাত্র নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান সী ফুড হাউজটি দুটি ফ্লোরে পরিচালিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির প্রথম ফ্লোরে রেস্টুরেন্ট ও দ্বিতীয় ফ্লোরে পার্টি সেন্টার করা হয়েছে। তৃতীয় ফ্লোরের পার্টি সেন্টারটিতে করা যাবে বিয়ের অনুষ্ঠান, সুন্নাতে খাৎনা, জন্মদিন উদযাপন, সেমিনারসহ যেকোন ধরনের ভোজের আয়োজন। একসাথে পাঁচশ’জনের খাবারের আয়োজন এখানে একবারেই করা সম্ভব। তাই যারা এধরনের অনুষ্ঠানের জন্য ফ্লোর খুঁজে থাকেন তাদের জন্য ‘সি ফুড হাউজ’ এর দৃষ্টিনন্দন পার্টি সেন্টারটিই সেরা। সেই সাথে এখানকার ভিন্নধর্মী হরেক রকম খাবার ভোজনের মুহুর্তকে করে তুলবে সত্যিই আনন্দায়ক।


‘সি ফুড হাউজ’ এর বর্ণনা শুনে যাদের মনে রেস্টুরেন্টটিতে যাওয়ার ইচ্ছে জেগেছে, তাদের জন্য রেস্টুরেন্টটির ঠিকানা দেয়া হলো:-

‘সি ফুড হাউজ’। স্থান: সেক্টর-৭, রবীন্দ্র স্মরণী, বাড়ী-২৮, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০। মোবাইল: ০১৮৪১৭৭৯৬৭৯।