uttaranews24 uttaranews24
সবার আগে সবসময়


উত্তরায় রাজউক ও ফায়ার সার্ভিসের যৌথ অভিযান; ৩ ভবনকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা






উত্তরা নিউজ টোয়েন্টিফর ডটকম। এস,এম,মনির হোসেন জীবন:  রাজধানীর বহুতল ভবনের অবকাঠামো ও অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন অনিয়ম খতিয়ে দেখতে যৌথ ভাবে পৃথক পৃথক অভিযান শুরু করেছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও দি লাইফ সেভিং ফোর্স (ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স) বাহিনী।
মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে শুরু করে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বনানীর কামাল আতাতুর্ক সড়কে ১৫ তলাবিশিষ্ট প্রাসাদ ট্রেড সেন্টার, এবিসি হাউস, টাওয়ার হেমলেট, স্টার টাওয়ার, টাওয়ার হেমলেটে,উত্তরা পশ্চিম থানার ৭ নম্বর সেক্টরের ম্যাসকাট প্লাজা, নর্থ টাওয়ার ও ১৩ নম্বর সেক্টরের সোনারগাঁও জনপথ সড়কের বহুতল মার্কেট জমজম টাওয়ারে অভিযান চালায় রাজউক ও উত্তরা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মকর্তারা। অভিযান চলাকালে বেশ কয়েকটি ভবনের বেজমেন্ট, কারপার্কিং, ছাঁদ,ইমারজেন্সী সিঁড়ি,জরুরি বহির্গমন সিঁড়িসহ বিভিন্ন বিষয় পরিদর্শন করা হয়। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানার ৩ নম্বর সেক্টরস্থ রাজলক্ষী মার্কেট, আমির কমপ্লেক্স ও ৯ নম্বর সেক্টরস্থ আধুনিক মেডিক্যাল কলেজ (বাংলাদেশ আধূনিক মেডিক্যাল কলেজ) হাসপাতালকে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন হিসেবে চিহিত করে ব্যনার টানিয়ে দেওয়া হয়। উত্তরা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মকর্তারা রাতে অভিযান চালায়।


উত্তরার ম্যাসকাট প্লাজা ও নর্থ টাওয়ার বহুতল ভবনে এ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন ফায়ার সার্ভিসের উত্তরা ও টঙ্গী জোনের উপসহকারী পরিচালক মো: মানিকুজ্জামান,উত্তরা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো: সফিকুল ইসলাম ও ওয়্যার হাউজ ইন্সপেক্টর আবুজাফর আহমেদ ও মনিরুজ্জামান সহ অন্যান্যরা সাথে ছিলেন।
উত্তরা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো: সফিকুল ইসলাম আজ মঙ্গলবার জানান,আজ আমরা উত্তরার ম্যাসকাট প্লাজা ও নর্থ টাওয়ার বহুতল ভবনে সকাল ১০টা থেকে শুরু করে একটানা ৪টা পর্যন্ত এ অভিযান (পরিদর্শন) করেছি। আমরা ভবন মালিক (কর্তৃপক্ষ)কে নোটিশ দিয়েছি। পর্যায়ক্রমে ঝুকিপূর্ণ ভবনগুলো সিলগালা করে দিবো।
অভিযানের প্রথম দিন সোমবার ও দ্বিতীয় দিন আজ মঙ্গলবার বনানীর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ের পাঁচটি ভবন পরিদর্শন করে চারটিতেই ত্রুটি ধরা পড়ে ও যথাযথ অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা পাওয়া যায়নি। কোনও তলাতেই হিট ডিটেক্টর, স্মোক ডিটেক্টর লাগানো হয়নি। নেই ফায়ার অ্যালার্ম। আজ দুপুরে ফায়ার সার্ভিসের একটি টিমের সদস্যরা ওই ভবনে প্রবেশ করেন। আগামী এক মাসের মধ্যে ভবনটিতে অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা ঠিক করার নির্দেশ দেন তারা। এসব ভবনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানায় রাজউক।
ফায়ার সার্ভিসের বারিধারা স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ আজ জানান, আমরা তাদেরকে এক মাস সময় দিয়েছি। অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা ঠিক করে ভবনটি ব্যবহারের জন্য তাদের অনুরোধ করেছি।
তিনি জানান, ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা জরুরি ভিত্তিতে ভবনটিতে ফায়ার হাইড্রেন্ট, স্প্রিংক্লার ব্যবস্থা, স্মোক ডিটেক্টর, হিট ডিটেক্টর, ফায়ার অ্যালার্ম জরুরি ভিত্তিতে স্থাপন করতে বলেছেন। এছাড়া, ভবনটিতে আলাদা করে সাবস্টেশন ও জেনারেটরের সুইচ রুম তৈরির কথা বলা হয়। ইমার্জেন্সি এক্সিট লাইট, এক্সিট সাইন ও সার্বক্ষণিক সব সিঁড়ি ছাদ পর্যন্ত খোলা রাখতে বলেছেন তারা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের নম্বর ভবনের সিঁড়িতে লাগিয়ে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
রাজউকের জোন-৪ এর পরিচালক মামুন মিয়া আজ জানান, ভবনটিতে খালি জায়গায় রেস্তোরাঁ তৈরি করা হয়েছে। তাছাড়া যেখানে লিফট, সিঁড়ি, ফায়ার এক্সিট থাকার কথা, সেখানে তা করা হয়নি।
এদিকে, আজ ৮ নম্বর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ে রয়েছে এবিসি হাউস। ভবনটি ১৩ তলা হলেও নকশায় ১২ তলার অনুমোদন রয়েছে। ১৩ তলায় রয়েছে ‘দ্য স্কাই রুম ডাইনিং’ নামে একটি রেস্তোরাঁ। এছাড়া, ছাদে ওঠার জন্য নেই কোনও সিঁড়ি। লোহার তৈরি মই বেয়ে ছাদে ওঠানামা করতে হয়, ১৬ তলা বিশিষ্ট স্টার টাওয়ারে রয়েছে প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি। যা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।
এদিকে, বনানীর স্টার টাওয়ারে প্রবেশ করেন রাজউকের কর্মকর্তারা। ভবনের নকশা চাওয়া হলেও তাদেরকে তা দেখাতে পারেনি মালিক। কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ের ১৬ নম্বর প্লটে অবস্থিত টাওয়ার হেমলেট। ১৭ তলার ভবনটি পরিদর্শনে এসে ফায়ার এক্সিট সিঁড়ি খুঁজে পাননি রাজউকের কর্মকর্তারা। একইসঙ্গে তারা দেখতে পান ভবনের বেজমেন্টও ঝুঁকিপূর্ণ। সেখানে এলোমেলোভাবে গাড়ি পার্কিং করা রয়েছে। বেজমেন্টে বৈদ্যুতিক তার ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা হয়েছে।
রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান আজ জানান, আমরা এখন তথ্য সংগ্রহ করছি। পরবর্তীতে ভবনের ত্রুটিগুলো প্রকাশ করবো। যারা নিয়ম মানেননি তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা গ্রহন করবো।
তিনি বলেন, দায়ভার তো কিছু না কিছু আমাদের নিতে হবে। আমাদের লোকবলও কম। মাত্র দু’মাস আগে পরিদর্শক নিয়োগ করা হয়েছে।