ইরানের দূতাবাসে ইরাকি বিক্ষোভকারীদের অগ্নিকাণ্ড


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ২৮ নভেম্বর ২০১৯ - ১০:৫৩:২০ পূর্বাহ্ন

ইরাকের বিক্ষোভ দিন দিন ব্যাপক আকার ধারণ করছে। গত অক্টোবর থেকে দেশটিতে যে বিক্ষোভ চলছে তা সহিংস রুপ ধারণ করছে বুধবার রাতে। ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর নাজাফে অবস্থিত ইরানের একটি কনস্যুলেটে গতকাল রাতে অগ্নিসংযোগ করেছে বিক্ষোভকারীরা। খবর আলজাজিরার।

আলজাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, দেশটিতে গত কিছুদিন ধরে যে সরকার-বিরোধী বিক্ষোভ চলছে তার সবচেয়ে জোরালো প্রকাশ ঘটেছে গতকাল। কনস্যুলেটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ওই এলাকায় কারফিউ জারি করা হয়েছে। এছাড়া নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে একজন নিহত ও আরও ৩৫ বিক্ষোভকারী আহত হয়েছেন।

ইরাকের রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে, কনস্যুলেট ভবনে হামলার আগেই সেখানে থাকা সকল কর্মকর্তা-কর্মচারিদের নিরাপদে বের করে আনা সম্ভব হয়েছে। আলজাজিরা প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে বলছে, বিক্ষোভকারীরা কনস্যুলেট ভবন চারপাশ থেকে ঘিরে সীমানা প্রাচীর ও মূল ভবনে অগ্নিসংযোগ করে।

মার্কিন সংবাদ সংস্থা এপির প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, বিক্ষোভকারীরা জমায়েত হতে শুরু করলে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তাদের প্রতিরোধ করতে শুরু করে। সরাসরি গুলি ছাড়া কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে থাকে তারা। তবে এখনো বিস্তারিত কোনো তথ্য জানা যায়নি। পুলিশের গুলিতে একজন নিহত ও ৩৫ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

কনস্যুলেট ভবন ঘেরাও করার পর বিক্ষোভকারীরা ইরানের পতাকা নামিয়ে তার স্থলে ইরাকের পতাকা ঝুলিয়ে দেয়। ভবনের পেছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। ইরাকে ইরানের হস্তক্ষেপ নিয়ে বিক্ষোভকারীদের এই ক্ষোভ। তারা ইরানের সংসদ ও রাজনৈতিক দলসহ সরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রভাব খাটানোর জন্য ইরানকে দায়ী করে আসছে।

অক্টোবরের প্রথম দিন থেকে ইরাকের রাজধানী বাগদাদসহ দক্ষিণাঞ্চলীয় শিয়া অধ্যূষিত প্রদেশগুলোতে ব্যাপক এই সরকারবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা সরকারের বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতি, দুর্বল জনসেবা, জীবন যাপনের খারাপ মান ও বিশাল পরিমাণ মানুষের বেকারত্বের প্রতিবাদে এই আন্দোলন করছে।