ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট করোনা আক্রান্ত হয়েও বিতর্কে


» এইচ এম মাহমুদ হাসান | | সর্বশেষ আপডেট: ০৮ জুলাই ২০২০ - ১১:৪৫:৫৭ পূর্বাহ্ন

আমি সম্পূর্ণ সুস্থ। ইচ্ছে করছে সামনে গিয়ে একটু হাঁটতে। কিন্তু চিকিৎসকরা নিষেধ করেছেন। তাই হাটতে পারছি না। করোনা ধরা পড়ার পরে এ ভাবেই সাংবাদিক বৈঠক করে নিজের স্বাস্থ্যের খবর জানিয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো।  একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, ম্যালেরিয়ার চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খেতেও শুরু করে দিয়েছেন। যদিও করোনার চিকিৎসায় আদৌ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন কাজ করে কি না, তা নিয়ে অনেক বিতর্ক আছে।

  ব্রাজিলে যখন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে, তখন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, ব্রাজিলে অন্তত ৭০ শতাংশ মানুষের করোনা হবেই। কোনও ভাবেই তা আটকানো যাবে না। কিন্তু করোনা আটকানোর জন্য কোনও কোনও প্রদেশের স্থানীয় প্রশাসন যে ভাবে লকডাউনের কথা বলছে, তাতে অর্থনীতি ধসে পড়বে বলে হুঁশিয়ারি জানিয়েছিলেন তিনি। সাধারণ মানুষ আরও সমস্যায় পড়বেন। গোড়া থেকেই করোনা ভাইরাসকে ‘সাধারণ ফ্লু’য়ের সঙ্গে তুলনা করেছেন তিনি। বলেছেন, তিনি একজন প্রাক্তন খেলোয়াড়। কোনও ভাবেই তাকে করোনা ছুতে পারবে না।

কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। এর আগে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের করোনা হয়েছিল। তিনিও প্রথম পর্যায়ে করোনাকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে চাননি। এ বার আক্রান্ত হলেন বলসোনারো। করোনা ধরা পড়ার কয়েক দিন আগে পর্যন্তও সমর্থকদের মাঝে থেকেছেন প্রেসিডেন্ট। তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। মাস্ক ছাড়া ঘুরে বেড়িয়েছেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে।

বিশেষজ্ঞদের  আশঙ্কা, প্রেসিডেন্টের মাধ্যমে তার সহকর্মী এবং সমর্থকদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়তে পারে করোনা। সমস্যা হলো, করোনা ধরা পড়ার পরেও আইসোলেশনের ন্যূনতম নিয়ম মানছেন না বলসোনারো। যদিও প্রেসিডেন্টের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের বক্তব্য, সোমবার রাত থেকেই জ্বর আসে বলসোনারোর। তার পর থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সকলের সঙ্গে কথা বলছেন তিনি। কাউকে কাছে আসতে দিচ্ছেন না।

 করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরে প্রেসিডেন্ট নিজেই জানিয়েছেন, তিনি হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খাচ্ছেন। দেশের ভিতরেই বহু বিশেষজ্ঞ এর প্রতিবাদ করে বলেছেন, ভুল চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করছেন বলসোনারো। যদিও প্রেসিডেন্টের চিকিৎসকদের বক্তব্য, ওষুধটি কাজ করছে। জ্বর পুরোপুরি না কমলেও বলসোনারোর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

ব্রাজিলে করোনা পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা খানিকটা হলেও কমেছে। কিন্তু দেশের এক বড় অংশের মানুষের দাবি, সরকার এবং প্রশাসন করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের একাংশেরও তাই অভিমত।