luka-modrich

ফুটবলে ব্যক্তিগত পুরস্কার মানেই মেসি-রোনালদোর দ্বৈরথ। গত এক দশক ধরেই এটাই যেন নিয়ম হয়ে গিয়েছিল। গত ১০ বছরে বিশ্ব ফুটবলের সব ব্যক্তিগত বড় পুরস্কারই ভাগাভাগি করেছেন তারা দুজনে। এই দুই তারকার যৌথ রাজত্বে কে এসে হানা দিবে? অনেক দিন ধরেই চলছিল এরকম আলোচনা। সম্ভাব্য তারকা হিসেবে নাম উঠে এসেছিল নেইমার, কিলিয়ান এমবাপে, আঁতোয়া গ্রিজমানদের নাম। বাদ যায়নি মোহামেদ সালাহর নামও।

 

কিন্তু একা কেউ নন, মেসি-রোনালদোর সাম্রাজ্যে হানা দিয়েছেন ক্রোয়েশিয়ার উদ্বাস্তু শিবির থেকে উঠে আসা এক ফুটবলার। নাম লুকা মদ্রিচ। রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা চলতি বছর একে একে বগলদাবা করলেন ফুটবলের ব্যক্তিগত সব পুরস্কার। সর্বশেষ সোমবার ব্যালন ডি’অরেও মেসি-রোনালদোর যুগের শেষ টেনে দিলেন ৩৩ বছর বয়সী রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা। জিতে নিলেন ফরাসী সাময়িকীর দেওয়া সম্মানজনক এই পুরস্কার।

মদ্রিচের এই সাফল্য মেসি-রোনালদো কতটা মেনে নিয়েছেন, তা জানা যায়নি। কিন্তু বিশ্ববাসী যে মদ্রিচের শ্রেষ্ঠত্ব মেনে নিয়েছেন তাতে কোন সন্দেহ নেই। বিশ্বকাপ, উয়েফা বর্ষসেরা ও ফিফা বর্ষসেরা, মেসি-রোনালদোর রাজত্বে হানা দিয়ে এ বছরে এ পর্যন্ত দেওয়া ৩টি ব্যক্তিগত বড় পুরস্কারই জিতেছেন তিনি। গেল আগস্টে রোনালদো ও মোহাম্মদ সালাহকে পেছনে ফেলে উয়েফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছিলেন মদ্রিচ। পরের মাসে ফিফা বর্ষসেরা ‘‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ ট্রফিও তিনি জিতে নেন ওই দুজনকে পেছনে ফেলে। গত মৌসুমে রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা ছাড়াও উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপাও জেতেন তিনি। অবশেষে সর্বশেষ ব্যালন ডি’অরেও মেসি-রোনালদো যুগের ইতি টেনে দিলেন মদ্রিচ।

গেল মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতিয়ে রাশিয়ার বিশ্বকাপে গিয়েছিলেন মদ্রিচ। বিশ্বকাপে তার দল ক্রোয়েশিরার সর্বোচ্চ সাফল্য ছিল সেমি ফাইনাল পর্যন্ত। ১৯৯৮ সালে প্রথমবারের মতো ফ্রান্স বিশ্বকাপে অংশ নিয়েই সেমি ফাইনালে উঠেছিল ক্রোয়েশিয়া। এবার মদ্রিচরা সেই সাফল্য অতিক্রমের প্রত্যয় নিয়েই মাঠে নেমেছিলেন। দারুণ লড়াকু ফুটবলে দলকে ফাইনালে তুলেছিলেন তিনি। যদিও শিরোপা জেতা হয়নি। কিন্তু এর মধ্য দিয়ে নিঃসন্দেহে ক্রোয়েশিয়ার ফুটবলের নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছেন মদ্রিচরা। টুর্নামেন্ট জুড়ে অসামান্য পারফর্মেন্সের কারণে রিয়ালের এই ডিফেন্ডার জিতেছেন গোল্ডেন বল।

এবারের ব্যালন ডি’অরের দৌড়ে মদ্রিচের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন রোনালদো ও ফ্রান্সের আঁতোয়া গ্রিজমান। এবার যে মেসি-রোনালদোর আধিপত্য থাকবে না, তা আগে বোঝা গিয়েছিল। ফরাসি গণমাধ্যমগুলো ইঙ্গিতই দিয়ে রেখেছিল মদ্রিচ হতে যাচ্ছেন নতুন সম্রাট। হলোও তাই। ৭৫৩ পয়েন্ট নিয়ে ট্রফিটি জিতে নেন তিনি। দ্বিতীয় স্থানে থাকা রোনালদোর পয়েন্ট ৪৭৮। গ্রিজমানের পয়েন্ট ৪১৪। তিনি আছেন তৃতীয় স্থানে। এদিকে ২০০৭ সালের পর এই প্রথম শীর্ষ ৩ থেকে ছিটকে গেছেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার মেসি। তিনি আছেন ৫ নম্বরে।

ক্লাব ক্যারিয়ারে রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে সম্ভাব্য সবকিছুই জিতেছেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছেন ৪ বার। জিতেছেন লিগ, স্প্যানিশ সুপার কাপ, উয়েফা সুপার কাপ, বিশ্ব ক্লাব বিশ্বকাপ- সবকিছুই।

মদ্রিচের জন্ম ১৯৮৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর। ক্রোয়টদের রীতি- গ্রাম বা পরিবারের পূর্বসূরিদের নামানুসারে রাখা হয় নাম। লুকার ক্ষেত্রে দুটো রীতিই মানা হয়েছে। তার দাদার নাম ছিল লুকা, গ্রামের নাম মদ্রিচি। দুটো মিলিয়েই তিনি লুকা মদ্রিচ। জন্মের কয়েক বছর পরই যাকে আশ্রয় নিতে হয় উদ্বাস্তু শিবিরে, ফুটবলার হওয়ার স্বপ্নের চারা লাগাতে গিয়ে শুরুতেই খেতে হয় অমানবিক ধাক্কা, শারীরিক আকৃতির কারণে যাকে দলে নিতে অস্বীকৃতি জানায় ক্লাব, সময়ের পথ বেয়ে সেই লুকা মদ্রিচ এখন বিশ্বসেরা। ফুটবল বিশ্বের দুই দানবিক প্রতিভা মেসি ও রোনালদো যুগের অবসান ঘটিয়ে নতুন যুগের সূচনা করলেন তিনি।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / জি/তা

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা