আবুধাবি

শুক্রবার আবুধাবির ফর্মূলা ওয়ান রেইস ট্র্যাক ইয়াস ম্যারিনা সার্কিটে বসেছিল এর ১২তম আসর।

ফ্যামিলি ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশানের চেয়ারউইম্যান শেখা ফাতেমা বিনতে মুবারক আল নাহিয়ানের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রতিবছরই বাড়ছে এতে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ও জনপ্রিয়তা।

আমিরাতে বসাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরাও এতে স্বতস্ফূর্ত অংশ নিচ্ছেন। প্রবাসীরাও ধীরে ধীরে স্বাস্থ্য সচেতন হয়ে উঠছেন।

আবুধাবি ন্যাশনাল অয়েল কোম্পানিতে কাজ করেন মোহাম্মদ মিনহাজ। ওয়াকাথনে অংশ নেওয়া কমপক্ষে ১৫-২০ হাজার অংশগ্রহণকারীর মধ্য থেকে সহজেই বের করা গেল মিনহাজ দম্পতিকে।

তিনি জানান, সুযোগ পেলেই ছুটে যান টেনিস খেলতে কিংবা হাঁটাহাঁটিতে। তার আক্ষেপ আমাদের প্রবাসী বাংলাদেশিদের বড় অংশই স্বাস্থ্য সচেতন নন। স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে আছেন অনেকেই, এদের সচেতন করতে আমাদের কাজ করতে হবে।

প্রবাসী ব্যবসায়ী আবদুস সামাদ বলেন, “এখানে আসতে পেরে আমি আনন্দিত। এত বড় একটা ইভেন্টে অংশ নেওয়া সৌভাগ্যের ব্যাপার। ব্যক্তিগতভাবে আমি হঠাৎ জানতে পারলাম আমার সুগার এখন বর্ডার লাইনে। আমাদের সবারই ডায়াবেটিস বিষয়ে সচেতনতা দরকার। আশা করি ভবিষ্যতে সবাই মিলে আমরা হাঁটাহাঁটির অভ্যাস করব।”

ওয়াকাথনে এসে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে যেয়ে প্রিয়াংকা খন্দকার বলেন, “খুবই আনন্দিত এ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে এমন একটি ইভেন্টে যোগ দিতে পেরে।”

 

লুনা হকের কথায়, “আমি আবুধাবি এসেছি একবছর হলো। এই প্রথম এমন একটি চমৎকার ইভেন্ট পেলাম। এখানে ডায়াবেটিস রোগিদের সতর্কতামূলক নানা পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। আশা করি আমরা সবাই আরো স্বাস্থ্য সচেতন হবো।”

‘ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ডায়াবেটিস’ এর এক তথ্যমতে বর্তমানে বিশ্বে ৪২.৫ কোটি ডায়াবেটিক রয়েছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠির দেশটিতে যেখানে অভিবাসীদের নিয়ে মোট জনসংখ্যা ৮৫-৯০ লাখ সেখানে ডায়াবেটিকের সংখ্যা ১০ লাখের উপর।

বিশেষজ্ঞরা জানান, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস ও জীবনযাপন এর মূল কারণ। ‘আবুধাবি ওয়াক ২০১৮’ এর ক্যাম্পেইনের বাণীই তাই, ‘ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন,স্বাস্থ্যকর খাবার নিন, নিয়মিত শরীরচর্চার মাধ্যমে ডায়াবেটিস থেকে নিরাপদ থাকুন।’

 



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / এ/বি

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা